অপহরণের ঘটনার শতকরা ৮৪ ভাগই প্রেমঘটিত

অপহরণের ঘটনার শতকরা ৮৪ ভাগই প্রেমঘটিত

অপহরণের ঘটনার শতকরা ৮৪ ভাগই প্রেমঘটিত – পুলিশের এহেন বক্তব্যের যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন মানবাধিকার সংগঠন এবং সংশ্লিষ্টরা৷ তাদের কথায়, এর মাধ্যমে পুলিশ তার দায় ও ব্যর্থতা এড়ানোর চেষ্টা করছে৷

সম্প্রতি ‘কন্ট্রোল রিস্ক’ নামে একটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন তাদের প্রতিবেদনে জানায়, ‘অপহরণের শীর্ষ ১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান নবম৷’ আর এ তথ্য বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার পর, তার প্রতিবাদ জানিয়েছে পুলিশ বিভাগ৷ পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী পুলিশ মহা পরিদর্শক (এআইজি) মো. নজরুল ইসলাম প্রতিবাদ লিপিতে বলেন, ‘‘পৃথিবীর নবম সর্বোচ্চ জনবহুল দেশ বাংলাদেশে প্রেমঘটিত কারণে পালিয়ে গেলেও সেক্ষেত্রে অপহরণের মামলা হয়৷ এখানে প্রেমিক কর্তৃক প্রেমিকাকে অপহরণের মামলা মোট অপহরণ মামলার ৮৪ শতাংশ৷”

পুলিশ সদর দপ্তর আরো জানায়, ‘‘পর্যালোচনায় দেখা গেছে যে ‘কন্ট্রোল রিস্ক’-এর প্রতিবেদনটি অন্যান্য সংস্থার রিপোর্টের সাথে সাংঘর্ষিক৷ তাই রিপোর্টটির গ্রহণযোগ্যতা প্রশ্নবিদ্ধ৷ তারা দাবি করে, ‘‘লন্ডনভিত্তিক আন্তর্জাতিক সতর্ককারী সংস্থা ‘হেল্প বিল্ড পিস’-এর রিপোর্টে অপহরণের অপরাধ সংঘটনে ঝুঁকিপূর্ণ শীর্ষ দশে বাংলাদেশের নাম নেই৷ এছাড়া চলতি বছরের ৬ই মার্চ অস্ট্রেলীয় সরকার ‘কিডন্যাপিং থ্রেট ওয়ার্ল্ডওয়াইড’ শীর্ষক যে প্রতিবেদন পেশ করে, সেখানে অপহরণ সংক্রান্ত ‘সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশগুলোর মধ্যেও বাংলাদেশের নাম নেই৷

লন্ডনভিত্তিক আরেকটি সংস্থা ‘রেড ২৪’ ২০১৫ সালে শীর্ষ অপহরণ-প্রবণ যে ১০টি দেশের তালিকা প্রকাশ করেছে, সেখানেও নেই বাংলাদেশের নাম৷ এছাড়া ‘নেশন মাস্টার’ প্রণীত রিপোর্টটিতে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৩৩৷”

পুলিশ সদর দপ্তর জানায়, ‘‘এই সংস্থাগুলোর রিপোর্টে আফগানিস্তান, কলাম্বিয়া, ইরাক, সোমালিয়া, উত্তর আফ্রিকার সাহেল-সাহারা, ভারত, পাকিস্তান, ভেনিজুয়েলা, ফিলিপাইন্স এবং ইয়েমেনকে অপহরণ-প্রবণ শীর্ষ দশটি দেশ হিসেবে দেখানো হয়েছে৷”

পুলিশ সদর দপ্তরের দাবি, ‘‘একেক দেশে অপহরণের সংজ্ঞা এবং পরিসংখ্যান একেক রকম৷ অস্ট্রেলিয়ার পরিসংখ্যানে মুক্তিপণ বা চাঁদা আদায়, আদর্শগত ও রাজনৈতিক কারণে অপহরণ এবং জলদস্যুদের দ্বারা অপহরণকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে৷”

প্রেমিক-প্রেমিকা পালিয়ে গেলে কেন অপহরণের অভিযোগ গ্রহণ করা হয়? ডয়চে ভেলের এ প্রশ্নের জবাবে পুলিশের এআইজি নজরুল ইসলাম বলেন, ‘‘বিধি-বিধানের কারণেই বাংলাদেশ পুলিশ প্রেমিকদের বিরুদ্ধে অপহরণের মামলা নিয়ে থাকে৷ তবে সেটা পরিসংখ্যানে অন্তর্ভূক্ত করা হয়৷ তাই ‘কন্ট্রোল রিস্ক’ কোন ধরণের পরিসংখ্যান নিয়ে প্রতিবেদন করেছে সেটা অস্পষ্ট৷”

তাঁর কথায়, ‘‘বাংলাদেশে প্রকৃত অপহরণের সংখ্যা কম৷ প্রেমঘটিত অপহরণ বাদ দিলে তা মাত্র ১৬ ভাগ৷” অবশ্য সেই সংখ্যা, মানে মোট অপহরণের সংখ্যা বাংলাদেশ কত – তা তিনি তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেননি৷

পুলিশের উক্তির প্রতিক্রিয়া
অপহরণ নিয়ে পুলিশ সদর দপ্তরের এ বক্তব্য প্রসঙ্গে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) প্রধান সুলতানা কামাল ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘পুলিশের ভাষ্য যদি সত্য হয়, তাহলে বাংলাদেশের প্রায় সব অপহরণই মনে হচ্ছে প্রেমঘটিত৷ আর তাই যদি হতো তাহলে আমরা আশ্বস্ত হতে পারতাম৷ অপহরণকারীরা প্রেমিক হলে তা তো এত খারাপ হতে পারে না৷ কিন্তু আসলে কি তাই?”

তিনি বলেন, ‘‘পুলিশ সদর দপ্তরের এখন উচিত হবে তাদের বক্তব্যের সমর্থনে সঠিক তথ্য-উপাত্ত প্রকাশ করা৷ তাহলে আমরা তা অনুসন্ধান করে দেখতে পারব৷ তাছাড়া শতকরা হিসাব দিলেও বছরে মোট অপহরণের ঘটনা কতটি – তা প্রকাশ করেনি পুলিশ সদর দপ্তর৷ সেটা প্রকাশ করলে ভয়াবহতা বোঝা যেত৷”

সুলতানা কামাল জানান, ‘আসক’ অনেক দিন ধরেই বাংলাদেশে অপহরণের ঘটনা নিয়ে কাজ করছে৷ তাতে দেখা যাচ্ছে যে, অপহরণের ঘটনায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরাও জড়িত৷ এমনকি তারা অপহরণ করে মুক্তিপণও আদায় করে বলে অভিযোগ আছে৷”

তাই সুলতানা কামাল মনে করেন, ‘‘পুলিশ এ ধরণের বক্তব্য দিয়ে দায় এবং ব্যর্থতা এড়ানোর চেষ্টা করছে৷” তাঁর কথায়, ‘‘বাংলাদেশে যাঁরা অপহরণের শিকার হন, তাঁদের একটি বড় অংশ রাজনৈতি নেতা এবং কর্মী৷”

প্রসঙ্গত, আসক-এর হিসাব অনুযায়ী চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে বাংলাদেশে অপহৃত বা গুম হয়েছেন মোট ৩৯ জন৷ এছাড়া পাঁচ বছরে অপহরণের সংখ্যা ৩০২, যার মধ্যে ২০১০ সালে ৪৬, ২০১১ সালে ৫৯, ২০১২ সালে ৫৬, ২০১৩ সালে ৬৮ এবং ২০১৪ সালে অপহরণের সংখ্যা ৭৩ জন৷ এর মধ্যে ৪৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে, ফিরে এসেছে ২৪ জন৷ আর বাকিরা এখনও নিখোঁজ৷

আর থাকছে না হাতে লেখা পাসপোর্ট

Next Story »

রকিব হত্যা মামলার অন্যতম আসামি মো. শরীফের মা বিউটি বেগমের তিনদিনের রিমান্ড

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *